www.jhalokathisomoy.com
মুক্তচিন্তার অনলাইন সংবাদপত্র, ঝালকাঠি, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯, ৮ ফাল্গুন, ১৪২৫
শিরোনাম

সংসদে চার পদে নতুন মুখ

দেশ | January 13, 2019 - 7:41 pm

একাদশ জাতীয় সংসদের যাত্রা শুরুর সঙ্গে উপনেতা, চিফ হুইপ ও হুইপ পদেও নতুন মুখ আসছেন বলে রাজনৈতিক অঙ্গনে জোর আলোচনা চলছে। ডেপুটি স্পিকার পদেও নতুন মুখের সম্ভাবনা বেশি। বয়সে নয়, অভিজ্ঞতায় তুলনামূলক নতুন নেতাদেরকে প্রাধান্য দিয়ে মন্ত্রিসভা গঠনের মতো সংসদের পদগুলোতেও চমক দেখাতে চায় আওয়ামী লীগ। অভিজ্ঞ সংসদ সদস্য, দল ও জনমানুষের কাছে জনপ্রিয় নেতাদেরকেই সংসদের গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোতে বসানোর পরিকল্পনা করছে ক্ষমতাসীন দলটি। দলের নীতিনির্ধারক পর্যায়ের সূত্র বাংলাদেশের খবরকে এসব তথ্য জানায়।

তথ্যমতে, একাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন বসছে আগামী ৩০ জানুয়ারি। ওইদিন বেলা ৩টায় সংসদ অধিবেশন আহ্বান করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। ৩০ জানুয়ারি একাদশ সংসদের স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার নির্বাচন করা হবে। নতুন সংসদে সরকারদলীয় উপনেতা, চিফ হুইপ ও হুইপ কারা হচ্ছেন; সেসব নিয়ে এখন চলছে আলোচনা। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যন্ত একই আলোচনা চলছে। নিজ এলাকার সংসদ সদস্যের নাম আছে কি না সম্ভাব্য তালিকায়, সেই আলোচনায়ও অনেকের আগ্রহ বেশি।

এসব পদে দায়িত্ব পেতে আগ্রহীরাও নানাভাবে নিজের নাম তালিকায় আছে কি না, তা জানার চেষ্টা করছেন। সংবাদমাধ্যমে নিজের নাম দেখে কেউ কেউ দলের শীর্ষ পর্যায়ে তদবিরও চালিয়ে যাচ্ছেন পদের জন্য। তবে আলোচনায় অনেকের নাম উঠে এলেও এসব প্রসঙ্গে সংবাদমাধ্যমের কাছে নিজে উদ্ধৃত হয়ে কিছু বলতে রাজি হচ্ছেন না আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল নেতাদের কেউ।

সূত্র জানায়, সংসদ উপনেতা হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দীর্ঘদিন ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী। আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের হাল ধরা এই নেত্রী সদ্য শেষ হওয়া জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও দলীয় মনোনয়নে জয়ী হন। গত ১০ বছর তিনি এ পদে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এখন তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ হওয়ায় এ পদে দায়িত্ব পালনে সক্ষম হবেন কি না, এ প্রশ্ন আসছে। তাই এ পদে এবার অন্যদের নাম শোনা যাচ্ছে। এবার বেশি আলোচনায় আছে দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীর নাম। আলোচনায় আছে দলের প্রবীণ নেতা, সাবেক মন্ত্রী আমির হোসেন আমু ও মোহাম্মদ নাসিমের নাম। আটবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের নামও সংসদ উপনেতা হিসেবে ইতোমধ্যে প্রচার মাধ্যমে আলোচিত হয়েছে। অবশ্য প্রবীণ এ নেতা সংসদের উপনেতা হিসেবে নিজের নাম থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

সূত্র মতে, সংসদ উপনেতার সম্ভাব্য তালিকায় দলের শীর্ষ পর্যায়ের নেতা শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নামও আছে। আটবারের এ সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রীকে নিয়ে জোর আলোচনাও চলছে। তবে মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিকটাত্মীয়দের মধ্য থেকে কাউকে সদস্য করেননি। এ যুক্তি দেখিয়ে অনেকে বলছেন, নিকটাত্মীয় হওয়ায় সংসদ উপনেতার পদের জন্য শেখ সেলিম শেষ পর্যন্ত বিবেচিত নাও হতে পারেন।

সূত্র জানায়, রাষ্ট্রের তৃতীয় ক্ষমতাধর ব্যক্তি হিসেবে বা সংসদে স্পিকার পদে কে আসছেন, এ নিয়ে নতুন কোনো আলোচনা তেমন নেই। টানা তৃতীয়বারের মতো স্পিকার হচ্ছেন ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, এটা অনেকে ধরে নিয়েছেন। একাদশ সংসদের স্পিকার হিসেবে এবারো দেখা যেতে পারে তাকে- আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একাধিকবার এ বিষয়ে তার মনোভাব জানিয়েছেন।

একাদশ সংসদ নির্বাচনে রংপুর-৬ পীরগঞ্জ আসন থেকে নির্বাচিত হন ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। ওই আসন মূলত শেখ হাসিনার শ্বশুরবাড়ির এলাকা হওয়ায় সেখান থেকে সাধারণত প্রধানমন্ত্রীই নির্বাচন করে থাকেন। তবে এবার আসনটি ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীকে ছেড়ে দেন বঙ্গবন্ধু তনয়া। টানা তৃতীয়বার শিরীন শারমিন চৌধুরী স্পিকার হচ্ছেন- এ ইঙ্গিত প্রধানমন্ত্রী গত ২৩ ডিসেম্বর রংপুরের পীরগঞ্জে নির্বাচনী জনসভায় দেওয়া বক্তৃতায়ও উল্লেখ করেন।

তবে জাতীয় সংসদে ডেপুটি স্পিকার পদে কে আসছেন, তা এখনো স্পষ্ট নয়। এ পদে সাবেক আইনমন্ত্রী আবদুল মতিন খসরু, সাবেক চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ আবদুস শহীদ ও সাবেক উপমন্ত্রী ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুর নাম আলোচনায় আছে। বর্তমান চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ এবার বাদ পড়তে পারেন- এমন আলোচনা আছে। হুইপ পদে নতুন মুখ হিসেবে আসতে পারেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন ও নুরে আলম চৌধুরী লিটন। তাদের মধ্যে নুরে আলম চৌধুরী লিটন টানা ছয়বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য। নবম জাতীয় সংসদে তিনি হুইপ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

দশম সংসদের হুইপদের মধ্যে ইকবালুর রহিম ও মাহবুব আরা বেগম গিনিকে এবারো এ পদে দেখা যেতে পারে। দশম সংসদের ছয়জন হুইপের মধ্যে সাহাবউদ্দিনকে একাদশ সংসদের পরিবেশ, বন ও জলবায়ু মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। হুইপ পদে আরো নতুন মুখ যোগ হওয়ার সম্ভাবনাও আছে। এ তালিকায় কয়েকজন নতুন সংসদ সদস্যের নাম আলোচনায় আছে।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘সংসদ উপনেতা বা চিফ হুইপ পদে কারা আসবেন, সেগুলো ঠিক করবেন আমাদের সংসদ নেতা। তবে অনেকবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন, এমন অভিজ্ঞ ও পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তির কাউকে সাধারণত চিফ হুইপ হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়ে থাকে। সংসদ সদস্য, জ্যেষ্ঠ নেতা ও দলের মধ্যে সার্বিক গ্রহণযোগ্যতা আছে- এমন ব্যক্তিকেই সংসদ উপনেতা হিসেবে নির্বাচিত করা হয়।’

‘একাদশ সংসদ অধিবেশন বসতে এখন আর আইনগত কোনো বাধা নেই’ বলে জানান সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ। তিনি বলেন, ‘সংসদ সদস্য হিসেবে যেদিন শপথবাক্য পাঠ করেন, সেদিন থেকেই তিনি বা তারা স্বীয় পদে অধিষ্ঠিত হয়েছেন বলে ধরে নেওয়া হয়। কারণ, সংবিধানের ১৪৮-এর ৩ ধারাতে আছে শপথবাক্য পাঠ করা অপরিহার্য। এরপর কোনো সংসদীয় আসন কোনো কারণে খালি হয়ে গেলেও তার জন্য সংসদ অধিবেশন থেমে থাকবে না।

 

(দৈনিক বাংলাদেশের খবরের খবর/সুতীর্থ/ ঝাস)

মুক্তচিন্তার যে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এ সাইটের তথ্য বা ছবি ব্যবহার করতে পারবেন, তবে সে ক্ষেত্রে তথ্য সূত্র উল্লেখ করতে হবে-সম্পাদক ঝালকাঠি সময়।