www.jhalokathisomoy.com
মুক্তচিন্তার অনলাইন সংবাদপত্র, ঝালকাঠি, ১৯ জানুয়ারী, ২০১৯, ৬ মাঘ, ১৪২৫
শিরোনাম

ট্রাম্পকে উনের হুঁশিয়ারি

বিদেশ | January 2, 2019 - 4:37 pm

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন বলেছেন, তাঁর দেশের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা অব্যাহত থাকলে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চলমান সম্পর্কের গতিপথ পাল্টে ফেলতে পারেন। গতকাল মঙ্গলবার ইংরেজি নববর্ষ উদ্যাপনের এক বক্তৃতায় এ হুঁশিয়ারি দেন তিনি। সঙ্গে এও বলেছেন, ফলপ্রসূ আলোচনার জন্য তিনি যেকোনো সময় ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে বসতে রাজি আছেন।

গত বছরের প্রথম ছয় মাস ট্রাম্প ও উনের মধ্যে অনেক ‘উচ্চবাচ্য’ হয়। তাঁদের বাগ্যুদ্ধে যুদ্ধের ভয়ও তৈরি হয়েছিল অনেকের মধ্যে। এর মধ্যে গত জুনে সিঙ্গাপুরে দুই নেতা বৈঠকে বসেন এবং কোরীয় উপদ্বীপকে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু প্রতিশ্রুতি এখন পর্যন্ত প্রতিশ্রুতিই রয়ে গেছে। দুই পক্ষের সম্পর্কের দৃশ্যমান কোনো অগ্রগতি ঘটেনি। এমনকি ‘পরমাণু অস্ত্রমুক্ত কোরীয় উপদ্বীপের’ মানে অনেকের কাছে পরিষ্কার নয়।

এ অবস্থায় গতকাল উন বলেন, ‘বিশ্ববাসীকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি পূরণে যুক্তরাষ্ট্র ব্যর্থ হলে এবং আমাদের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা কিংবা চাপপ্রয়োগ অব্যাহত থাকলে, আমরা নিজেদের সার্বভৌমত্ব রক্ষার স্বার্থে বিকল্প কোনো পথ বেছে নিতে বাধ্য হব।’ উন আরো বলেন, ‘ফলপ্রসূ আলোচনার জন্য আমি যেকোনো সময় ট্রাম্পের সঙ্গে বসতে রাজি আছি।’

পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের শর্ত হিসেবে উত্তর কোরিয়া চায়, আগে তাদের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হোক। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্র যে প্রক্রিয়ায় পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ চায়, সেটাকে ‘মাস্তানি’ হিসেবে দেখে তারা। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের মনোভাব হলো, পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ নিশ্চিত হলেই শুধু নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হবে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, দুই দেশের আলোচনায় কার্যত কোনো অগ্রগতি না হওয়ায় উন যে খানিকটা হতাশ, তা তাঁর বক্তব্যে ফুটে উঠেছে। দক্ষিণ কোরিয়ার সাবেক ‘ইউনিফিকেশন’ (দুই কোরিয়ার সমন্বয় বিষয়ক) মন্ত্রী কিম হাইউং সিওক বলেন, নিজেদের একটি পরমাণু অস্ত্রের পরীক্ষাকেন্দ্র ধ্বংসের পর উত্তর কোরিয়া আশা করেছিল যে যুক্তরাষ্ট্র এর প্রতিদানে কোনো পদক্ষেপ নেবে। কিন্তু তেমন কিছুই ট্রাম্প করেননি।

পূর্বসূরিদের একটা রীতি হিসেবেই নতুন বছরে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন উন। এটি সরাসরি রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে প্রচারও হয়। এ ভাষণে মূলত দেশের অর্থনীতি নিয়ে নানা পরিকল্পনা তুলে ধরা হয়। তবে আন্তর্জাতিক কূটনীতির দৃষ্টিও তাঁর ভাষণের দিকে থাকে।

উন বলেন, ‘আমরা ঘোষণা দিয়েছিলাম, উত্তর কোরিয়া আর কোনো পরমাণু অস্ত্র তৈরি, পরীক্ষা কিংবা ব্যবহার করবে না।’ উত্তর কোরিয়ার এমন প্রতিশ্রুতির পরিপ্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্রকে ‘কিছু করার’ আহ্বান জানান উন।‘ফেডারেশন অব আমেরিকান সায়েনটিস্টস’-এর সদস্য অঙ্কিত পাণ্ডে বলেন, উত্তর কোরিয়া সত্যিকারার্থে এসব প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করে থাকলে তা অবশ্যই ইতিবাচক। আর সত্যি হলে যুক্তরাষ্ট্রের পাল্টা কোনো পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

(দৈনিক কালের কন্ঠের খবর/সুতীর্থ/ ঝাস)

মুক্তচিন্তার যে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এ সাইটের তথ্য বা ছবি ব্যবহার করতে পারবেন, তবে সে ক্ষেত্রে তথ্য সূত্র উল্লেখ করতে হবে-সম্পাদক ঝালকাঠি সময়।