www.jhalokathisomoy.com
মুক্তচিন্তার অনলাইন সংবাদপত্র, ঝালকাঠি, ১৯ জানুয়ারী, ২০১৯, ৬ মাঘ, ১৪২৫
শিরোনাম

কবে আসছে ‘বিউটি সার্কাস’?

দেশ | January 12, 2019 - 7:57 pm

২০১৪-১৫ অর্থবছরে সরকারি অনুদান পায় সিনেমা ‘বিউটি সার্কাস’। ২০১৬ সালে ফেব্রুয়ারিতে শুরু হয় ছবিটির দৃশ্যধারণের কাজ। এরপর তিন বছর পেরিয়ে গেলেও মাহমুদ দিদার পরিচালিত ছবিটি এখনো আলোর মুখ দেখেনি।

মাহমুদ দিদার বলেন, ‘ছবিটির কাজ আমরা প্রায় গুছিয়ে এনেছি। আসছে পহেলা বৈশাখে বিউটি সার্কাস আমরা মুক্তি দিবো। তবে এখনো অনেক কিছুই নিশ্চিত হয়নি। তারপরও আমাদের জাতীয় জীবনের এই গুরুত্বপূর্ণ উৎসবের দিনে ছবিটি প্রেক্ষাগৃহে নিয়ে যেতে সর্বোচ্চ চেষ্টা আমরা করবো।’

সরকারি অনুদানের পাশাপাশি ‘বিউটি সার্কাস’ প্রযোজনা করছে ইমপ্রেস টেলিফিল্মস। ‘ছবিটি কবে মুক্তি পাবে’ এই বিষয়টি নিয়ে জানতে প্রতিষ্ঠানটির বিক্রয় ও বিপনন পরিচালক ইবনে হাসান খানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। এই প্রতিবেদককে তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি যতক্ষণ পর্যন্ত কোনো সিনেমা সেন্সর বোর্ডে জমা না হয়, ততক্ষণ পর্যন্ত সেটা কোন সিনেমাই না। বোর্ডে জমা হবে, সেন্সর হবে তারপর আমরা পরিকল্পনা করবো ছবিটি কবে মুক্তি পাবে।’

ইবনে হাসান খান আরও বলেন, ‘সিনেমা মুক্তি দেওয়া অনেক কঠিন কাজ। খুব অল্প সময়ে বললেন আর হয়ে গেল এরকম না। বিউটি সার্কাস মুক্তির ব্যাপারে এখনও কোন সিদ্ধান্ত আমরা নেইনি।’

‘বিউটি সার্কাস’ নিয়ে পরিচালক ও প্রযোজনা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের বক্তব্যে বিস্তর ফারাক দেখা গেলে ছবিটির বেশ কয়েকজন কলাকুশলীর সঙ্গেও কথা হয় এই প্রতিবেদকের। এদের অনেকেই ছবিটির নির্মাণ কাজ দ্রুত শেষ করতে নির্মাতাদের কাছে আহ্বান জানান।

‘বিউটি সার্কাস’ ছবির প্রধান অভিনয়শিল্পী জয়া আহসানও চান ছবিটি দ্রুত প্রেক্ষাগৃহে আসুক। দুই বাংলার নন্দিত এই অভিনেত্রী বলেন, ‘অভিনয় করা প্রতিটি ছবিই আসলে আদরের। আমি চাই ছবিটা দর্শকেরা দেখুক। আর বিউটি সার্কাস তো সরকার মানে জনগনের টাকায় বানানো সিনেমা। এখন জনগণ যদি ছবিটা দেখতে না পায় তাহলে এটা সত্যিই দুঃখজনক হবে।’

জয়া আহসান এখানে ‘দেবী’ ছবিটির প্রসঙ্গ টানেন। গেল বছরের সবচেয়ে আলোচিত ও নন্দিত এই ছবিটিও সরকারি অনুদানে নির্মিত হয়েছে। প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ‘সি তে সিনেমা’ থেকে মুক্তি দেওয়া এই ছবির উদাহারণ দিয়ে জয়া বলেন, ‘ইচ্ছে থাকলে অনুদানের সিনেমা যথা সময়ে শেষ করা যায়।’

‘বিউটি সার্কাস’ নিয়ে তথ্য মন্ত্রনালয়ের সাবেক অতিরিক্ত সচিব [বর্তমানে বিটিভি’র মহাপরিচালক] হারুনুর রশিদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘ছবিটির কাজ যথাসময়ে শেষ করা উচিত ছিলো। আমার সময়ে ছবিটি অনুদান পেয়েছে। এতোদিন পেরিয়ে গেলেও কেন ছবিটি শেষ হয়নি সেটি সত্যিই বিষ্ময়কর!’

পরিচালক পহেলা বৈশাখে ‘বিউটি সার্কাস’ মুক্তি দেয়ার কথা বললেও আসলে সে সময়ে ছবিটি মুক্তি পাবে কিনা তা অনিশ্চিত। তবে ছবিটি নির্মাণে অনেক বেশি সময় ব্যয় করে ফেলায় প্রযোজক-কলাকুশলী ও সরকারী কর্মকর্তারা বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। অনেকে বিরক্তও হয়েছেন। তবে দ্রুততম সময়ের মধ্যে যদি ছবিটি মুক্তি দেওয়া যায় তাহলেই হয়তো স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারবেন নির্মাতা মাহমুদ দিদার।

প্রসঙ্গত, জয়া আহসান ছাড়াও বিউটি সার্কাসে অভিনয় করেছেন এবিএম সুমন, ফেরদৌস, তৌকীর আহমেদ, শতাব্দী ওয়াদুদ। সার্কাসের এক খিলাড়ির জীবন ও প্রেমের গল্পে নির্মিত হচ্ছে এই ছবি।

 

( সারাবাংলা ডটনেটের খবর/সুতীর্থ/ঝাস)

মুক্তচিন্তার যে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এ সাইটের তথ্য বা ছবি ব্যবহার করতে পারবেন, তবে সে ক্ষেত্রে তথ্য সূত্র উল্লেখ করতে হবে-সম্পাদক ঝালকাঠি সময়।